ইমু সফটওয়্যার কিভাবে ব্যবহার করবেন?

বর্তমানে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর মধ্যে ইমু অন্যতম। নানামুখী সুবিধার কারণে অনেকেই ইমু সফটওয়্যারটি ব্যবহার করেন। আমাদের দেশে প্রবাসীরা তাঁদের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য প্রায়ই এটি ব্যবহার করেন। আজকে আপনারা ইমু সফটওয়্যার ডাউনলোড ও ব্যবহারের উপায় এবং আরও কিছু খুঁটিনাটি বিষয় জানতে পারবেন।

ইমু হলো অডিও বা ভিডিও কলের সুবিধা সহ একটি ইন্সট্যান্ট মেসেজিং প্ল্যাটফরম। এতে সর্বোচ্চ ২০ জন অংশগ্রহণকারী একই সময়ে অডিও/ভিডিও কলে যুক্ত হতে পারে। ইমু সফটওয়্যার নির্মাতাদের দাবি মতে, প্রায় ২০০ মিলিয়ন একটিভ ইউজার রয়েছে ইমুর। প্রতিদিন প্রায় ৫০ মিলিয়নের বেশি মেসেজ আদান- প্রদান হয় এই অ্যাপ ব্যবহার করে। এ থেকেই এর জনপ্রিয়তা টের পাওয়া যায়।

২০০৫ সালে ইমু সফটওয়্যারটি তৈরি করে পেইজবাইটস কোম্পানি। ২০১৮ সালে এই প্ল্যাটফরমটি ৫০ কোটি ইউজারের মাইলফলক অতিক্রম করে। আজকের আর্টিকেলে আপনারা ইমু সম্পর্কে একটা ধারণা পাবেন। তাই চলুন, দেরী না করে শুরু করা যাক।

মোবাইলে ইমু সফটওয়্যার ডাউনলোড ও ব্যবহার

ইমু স্বাভাবিকভাবেই একটি মোবাইল অ্যাপ। গুগল প্লে স্টোর, অ্যাপল স্টোর সহ সব মোবাইল অপারেটিং সিস্টেমের ডিফল্ট স্টোরে ইমু সহজেই পেয়ে যাবেন। সব স্টোরে সিস্টেম প্রায় একই রকম। আমরা আজ গুগল প্লে স্টোর ব্যবহার করে ইমু ডাউনলোড ও ব্যবহারের উপায় বলবো।

ইমু সফটওয়্যার

প্রথমেই অ্যান্ড্রয়েড সেট থেকে আপনি গুগল প্লে স্টোর ওপেন করবেন। এখানে টপ বারে ‘Imo’ লিখে সার্চ করলে সবার প্রথমেই ইমু সফটওয়্যারটি পেয়ে যাবেন। তারপর Install বাটনে ক্লিক করবেন। এতে করে সফটওয়্যারটি ডাউনলোড ও ইনস্টল হয়ে যাবে। ডাউনলোড ও ইনস্টল হতে কিছু সময় লাগতে পারে। সেটা আপনার ইন্টারনেটের গতি ও মোবাইল ডিভাইসের পারফরমেন্সের উপর নির্ভর করে।

ইমু সফটওয়্যার ওপেন প্রক্রিয়া

ইনস্টল হয়ে যাওয়ার পর ম্যানু/সফটওয়্যার লিস্ট থেকে ইমু অপেন করবেন। প্রথমেই সফটওয়্যারটি কল করার পারমিশন চাইবে। আপনি ‘Allow’ বাটনে ক্লিক করবেন। ইমু সফটওয়্যার ব্যবহার করে যেহেতু আপনি অডিও/ভিডিও কলে কথা বলবেন, তাই এই পারমিশনটি দেয়ার প্রয়োজন হয়।

তারপর দেশ ও মোবাইল নম্বর সিলেক্ট করার অপশন দেখতে পাবেন। এখানে ড্রপ ডাউন লিস্ট থেকে আপনার দেশের নাম সিলেক্ট করে নিবেন। তারপর নিচের ব্ল্যাঙ্ক বক্সে আপনার মোবাইল নম্বরটি প্রদান করবেন। তবে এই নম্বরটিতে আপনার একসেস থাকতে হবে। তারপর ডান পাশের টিক চিহ্নে ক্লিক করবেন। আপনাকে মোবাইল নম্বরটি কনফার্ম করতে বলা হবে। আপনি নিশ্চিত হওয়ার পর ‘Okay’ অপশনে ক্লিক করবেন।

ইমু সফটওয়্যার এ ওটিপি

তাৎক্ষনিকভাবে আপনার মোবাইল নম্বরে একটি ওটিপি বা ওয়ান টাইম পিন কোড পাঠানো হবে। সেই ওটিপি আপনাকে ইমু অ্যাপে ইনপুট দিতে হবে। ওটিপি ইমু অ্যাপে দেয়ার পর আপনার নাম দিতে বলা হবে। আপনি ইমুতে যে নামটি ডিসপ্লে নেইম হিসেবে ব্যবহার করতে চান, সেটি এখানে প্রদান করবেন। নাম টাইপ করার পর উপরে ডান পাশ ‘Done’ বাটনে ক্লিক করবেন।

ইমু সফটওয়্যার এ প্রোফাইল পিক

এই ধাপগুলো অতিক্রমের পর আপনার ইমু একাউন্ট তৈরি হয়ে গিয়েছে। তারপর আপনি প্রোফাইল ছবি আপলোডের অপশন দেখতে পাবেন। স্ক্রিনে একটি ক্যামেরা আইকন দেখতে পাবেন। তাতে ক্লিক করলে আপনি ছবি সিলেক্ট করার অপশন পাবেন। এর মাধ্যমে ইমু সফটওয়্যারে আপনার প্রোফাইল ছবি সেট করতে পারবেন। তবে এই কাজটি করার সময় আপনার ছবি, মিডিয়া ও ফাইলে একসেস পারমিশন চাইবে ইমু। এটিও Allow করে দিবেন।

ইমুতে কনটাক্ট লিস্ট একসেস

ছবি আপলোডের পর ইমু সফটওয়্যার আপনার কনটাক্ট লিস্ট একসেস করার পারমিশন চাইবে। এটি Allow করলে আপনার মোবাইলে সেইভ রাখা নম্বরগুলো ইমুতে খুব সহজে খুঁজে পেয়ে যাবেন। বন্ধুদেরকে ইমুতে ইনভাইট দেয়ার অপশন দেখতে পাবেন। এখানে ‘Not now’ অপশনে ক্লিক করতে পারেন। ইমু সফটওয়্যার আপনার লোকেশন একসেস চাইবে। এটি চাইলে দিতেও পারেন, নাও দিতে পারেন।

এরপর আপনার ইমু সফটওয়্যার ও একাউন্ট সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আপনি ইমু অ্যাপে উপরের দিকে চ্যাট, এক্সপ্লোর, কনটাক্ট ইত্যাদি অপশন দেখতে পাবেন। এই অপশনগুলোর কোনটির কী ব্যবহার সেটা শব্দের অর্থ থেকেই বুঝতে পারছেন। ব্যবহার করতে থাকলে খুব দ্রুতই এই অপশনগুলোর সাথে পরিচিত হয়ে যাবেন।

কম্পিউটারে ইমু সফটওয়্যার ডাউনলোড ও ব্যবহার

কম্পিউটারে ইমু ব্যবহার করতে হলে আগে থেকেই ইমু একাউন্ট করা থাকতে হবে। আপনি যদি কম্পিউটার ব্যবহার করেই ইমু একাউন্ট খুলতে চান, তাহলে আপনাকে Bluestacks বা অনুরূপ Emulator সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে কম্পিউটারে। Emulator সফটওয়্যার ব্যবহারের মাধ্যমে কম্পিউটারেই মোবাইলের অনেক সুবিধা পাওয়া যায়। তবে এই সফটওয়্যারগুলো কম্পিউটারের র‌্যামের জন্য ক্ষতিকর। যাই হোক, ধরে নিচ্ছি, আগে থেকেই আপনার ইমু একাউন্ট করা আছে। তাহলে Emulator ছাড়াই আপনি কম্পিউটারে ইমু সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারবেন।

প্রথমেই আপনাকে ইমুর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। এই লিংকের মাধ্যমে আপনি অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে পারবেন। ওয়েবাসাইটে ‘Imo for Windows’ নামে একটি অপশন আছে। এটিতে ক্লিক করলে কম্পিউটারের জন্য (উইন্ডোজ) ইমু সফটওয়্যার ডাউনলোড হয়ে যাবে। অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের জন্যও অপশন রয়েছে ইমুর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে।

ইমু সফটওয়্যার

ডাউনলোড হওয়া ফাইলটি কম্পিউটারে ইনস্টল করে নিতে হবে। এক্ষেত্রে স্বাভাবিক সফটওয়্যার ইনস্টলের প্রক্রিয়া অনুসরণ করলেই হবে। অর্থাৎ, Next / Forward / Allow / Proceed ইত্যাদি পজিটিভ অপশন সিলেক্টের মাধ্যমে এগিয়ে যেতে হবে।

ইমু সফটওয়্যার পিসিতে সেটআপ

কম্পিউটারে ইমু সফটওয়্যারটি ইনস্টল হয়ে গেলে, সেটি ওপেন করবেন। Home Page এ আপনাকে জিজ্ঞাসা করা হবে, আপনার মোবাইলে ইমু সেট করা আছে কিনা। আপনি ‘Yes’ বাটনে ক্লিক করবেন। তারপর দেশ ও মোবাইল নম্বর সিলেক্ট করতে বলা হবে। আপনার মোবাইলে আগে থেকে সেট করে রাখা ইমু একাউন্টের তথ্য এখানে ব্যবহার করবেন। ‘Agree and continue’ বাটনে ক্লিক করবেন।

তারপর আপনার মোবাইলে একটি আট ডিজিটের ওটিপি কোড যাবে। সেটি কম্পিউটারের ইমু সফটওয়্যারে প্রদান করতে হবে। ওটিপি দেয়ার পর ওটিপির ডান পাশে সাবমিট বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর আপনার ইমু একাউন্ট কম্পিউটারে লগ ইন হয়ে যাবে।

ইমু সফটওয়্যার এ ইমুলেটর এর প্রয়োজনীতা

এসব ধাপ অতিক্রম করলে আপনি কম্পিউটার ব্যবহার করেও ইমু ব্যবহার করতে পারবেন। অর্থাৎ, স্বাভাবিকভাবে কম্পিউটার থেকে নতুন ইমু একাউন্ট করা যায় না। তবে উপরের ধাপগুলো অনুসরণ করে আপনি ইমুতে লগ ইন করতে পারবেন কম্পিউটার থেকেই। কম্পিউটারে যদি একান্তই নতুন ইমু একাউন্ট খুলতে হয়, সেক্ষেত্রে Emulator সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে।

ইমুু ব্যবহারের নিরাপত্তা

ইমু সফটওয়্যার খুবই সহজেই হ্যাক করা যায়। কিন্তু আপনি হ্যাকিং সমন্ধে ধারনা থাকলে এটি সহজেই রোধ করতে পারবেন। অন্য কেউ ইমু হ্যাকিং করতে তার ফোন থেকে লগিন ওটিপি পাঠায় যেটা আপনার ফোন থেকে যে কোন উপায়ে দেখে ফেলে। ব্যাস এভাবেই আপনার ইমুর একসেস নিয়ে ফেলে।

শেষ কথা

ইমু সফটওয়্যার ডাউনলোড, একাউন্ট খোলা এবং আরও কিছু খুঁটিনাটি বিষয় আজ আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। ইমুর বহুমুখী সুবিধার পাশাপাশি কিছু অসুবিধাও আছে। ইমুতে ডাটার নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। তবে ব্যবহারের সুবিধা ও সহজ কনফিগারেশনের কারণে এটি জনপ্রিয়। বিশেষ করে বাংলাদেশে এর ব্যবহার খুবই কার্যকরী।

ইমু ব্যবহার করে সহজেই আপনজনের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করেন প্রবাসী সহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ। আমাদের ইমু সফটওয়্যার নিয়ে আজকের লেখাটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করবেন। কোনো মন্তব্য থাকলে কমেন্ট সেকশানে জানাতে ভুলবেন না।

আরো পড়ূনঃ

আপনার মোবাইলকে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করুন।

কম্পিউটারের জন্য বেস্ট ফ্রি ডাউনলোড ম্যানেজার সফটওয়্যার।

মোবাইল রিপেয়ারিং করতে দেওয়ার

তারেক আবরার একজন বাংলাদেশী কনটেন্ট রাইটার। বর্তমানে ঢাকার নটর ডেম কলেজের বিজ্ঞান বিভাগে অধ্যয়ন করছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে লেখালেখি, ব্লগিং ও এসইও কনটেন্ট রাইটিং এর সাথে যুক্ত আছেন। তিনি একটি জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞান লেখক হিসেবে কাজ করেন।

Leave a Comment