আপনার মোবাইলকে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করুন।

সেকেন্ডারি মনিটরঃ আজকে আমরা শিখব কিভাবে আমাদের হাতের অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল টি কে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে কম্পিউটারের সাথে ব্যবহার করতে পারি। এইখানে সেকেন্ডারি মনিটর বলতে কি বুঝানো হয়েছে? আমরা অনেক সময় বিভিন্ন জায়গা তে দেখে থাকব অনেকেই একটি কম্পিউটারে দুটা বার তার চেয়ে বেশি মনিটর ব্যবহার করে যেটার এক স্ক্রিনে এক কাজ আরেক স্ক্রিনে আরেক কাজ করে।

এই জিনিস টা কেন করে? এর সুবিধা কি? অনেকের মনে এই প্রশ্ন জাগতে পারে তাহলে উত্তর হলো আমাদের অনেক সময় প্রয়োজন এক সাথে দুটা জিনিস দেখার বা একটা থেকে না সরে অন্য একটা কাজ করার কিন্তু তা সিঙ্গেল মনিটরে হয় না যেকোন একটাই এক সময়ে করতে পারেন সুইচ করে। কিন্তু যদি আলাদা ভাবে অন্য একটা মনিটর থাকে সেখানে কাজ টা দেখতে পারছেন আর আসল টাই কাজ টি করতে পারছেন। উদাহরণ আমরা যারা বিভিন্ন ধরনের গেম প্লে ভিডিও স্ট্রিম দেখি সেখানে খেয়াল করব প্লেয়ার রা খেলে অবস্থায় উইন্ডোজ সুইচ করা ছাড়া সহজেই আপনারা যা কমেন্ট করছেন তা পড়তাছে এর পিছনের রহস্য হলো তারা ডুয়াল মনিটর সেটআপ করে রাখছে।

এর মানে এই তারা আরেকটা মনিটর একটি উইন্ডো ওপেন করে রেখেছে যেখানে আপনারা যা কমেন্ট করছেন দেখা যাচ্ছে তাই তারা সুইচ করা ছাড়াই সহজেই কমেন্ট পড়তে পারছে। এইভাবে ধরুন আপনি কোন ভিডিও দেখে শিখতাছেন বা কিছু করতেছেন তা যদি আপনে সেকেন্ডারি মনিটর টি তে ফেলে রাখেন তাহলে আপনাকে ভিডিও স্টপ করে কাজ করে আবার কাজ শেষ হলে আবার স্টার্ট দিয়ে দেখার প্রয়োজন নেই। এই ভাবে যার যেভাবে ইচ্ছা সেকেন্ডারি মনিটর বা মাল্টি মনিটর সিস্টেম টা ব্যবহার করে থাকে।

এখন সমস্যার বিষয় হলো সবার তো আর ২টা করে মনিটর কেনার সার্মথ্য নাই কিন্তু সেকেন্ডারি মনিটর প্রয়োজন তাই আমি দেখাব কিভাবে আপনার মোবাইল কে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

যেভাবে মোবাইল কে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করবেনঃ

আমাদের অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল টি কে Secondary Monitor হিসাবে ব্যবহার করার জন্য একটি সফটওয়্যার লাগবে। আমরা যে সফটওয়্যার টি ব্যবহার করব তার নাম হলো SpaceDesk এখন আপনি এই সফটওয়্যার টা ছাড়া অনেক সফটওয়্যার পাবেন কিন্তু আমি এটি ব্যবহার করে দেখাব। আপনারা চাইলে অন্য সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। কিন্তু তার আগে Secondary Monitor সিস্টেম করার জন্য এই সফটওয়্যার টি আগে ট্রাই করবেন।

আর এই অ্যাপ টি ব্যবহার করে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একই নেটওয়ার্কের আওতায় থাকতে হবে। একই নেটওয়ার্ক বলতে আপনার রাউটারের সাথে পিসি মোবাইল দুটাই যুক্ত থাকা লাগবে। এছাড়াও আমরা USB Cable এর মাধ্যমে কাজ টি করতে পারি কিন্তু এটি মন মতো হবে না তাই আমি একই নেটওয়ার্কে এটি ব্যবহার করার পরামর্শ দিবো।

পিসি সফটওয়্যার ডাউনলোডঃ

Software Name: Space Desk ( Click here to Download )

Size: 5.56+ MB

মোবাইল সফটওয়্যার ডাউনলোডঃ

space desk

Spacedesk (multi-monitor display extension screen)

SpaceDesk ব্যবহার উদ্ধতিঃ

১। প্রথমে কম্পিউটার উপরের দেওয়া লিংক থেকে আপনার কম্পিউটার অনুযায়ী সফটওয়্যার টি ডাউনলোড করে নিন। আমার কম্পিউটার টি যেহেতু 64bits এর তাই আমি এটি ডাউনলোড করলাম।

download spacedesk

২। Spacedesk সফটওয়্যার টি ডাউনলোড হয়ে গেলে ইন্সটল করুন।

space desk install

৩। সফটওয়্যার টি ইন্সটল হয়ে গেলে একবার ওপেন করুন তারপর কেটে দিলেও সমস্যা নাই।

space desk driver

৪। এখন উপরে লিংক থেকে বা প্লে স্টোরে গিয়ে Spacedesk লিখে সার্চ দিয়ে কয়েক কেবির সফটওয়্যার ইন্সটল করে নিন ইন্সটল হয়ে গেলে ওপেন করুন। ওপেন করলে স্ক্রিনশটের মতো দেখেতে পাবেন এইখানে আপনার একই নেটওয়ার্কে কোন কোন কম্পিউটার আছে তা দেখাবে। এখন যেই কম্পিউটার কে সেকেন্ডারি মনিটরের জন্য ব্যবহার করতে চাই সেটিতে টাপ করুন।

spacedesk

৫। বুম দেখেন আপনার আপনার কম্পিউটার স্ক্রিন টি এখন মোবাইল সো করছে।

secondary monitor

অন্য উইন্ডো কিভাবে মোবাইল স্ক্রিনে নিয়ে যাবো?

এখন আপনি যেই উইন্ডো টি মোবাইল স্ক্রিনে সো করাতে চান সেটি কি ধরে রেখে ডান পাশ থেকে বের করে দেন তাহলে দেখবেন আপনার মোবাইলে স্ক্রিন বা উইন্ডো টি সো করতেছে। না বুঝলে স্ক্রিনশট দেখুন। নিচের স্কিনশট একটু আজব তাই না ? হ্যা এখানে খেয়া করেন বাম পাশে আর ডান পাশে। ডান পাশে যে স্ক্রিন দেখতে পারছেন সেটি হলো আমার মোবাইল স্ক্রিন এটা পিসি তে স্ক্রিনশট নেওয়ার সময় দুই স্কিন মিলে নিয়ে নিয়েছে তাই এমন দেখতে।

preview window

নোটঃ এটি আমাদের ভার্চুয়াল মনিটর বলতে পারেন আর যেহেতু এটা সফটওয়্যার ব্যবহার করে অন্য ভাবে করা হয়েছে তাই একটু সমস্যা হবেই বা কিছু জিনিস করা যাবে না।  আর হ্যাঁ আপনি আপনার মোবাইল স্ক্রিনে টার্চ করলে কিন্তু কাজ করবে আর আপনি যদি আপনার ফোনে মাউস লাগান তাহলে এটিও কাজ করার কথা। স্ক্রিন টি ক্লোজ করার জন্য ব্যাক বাটনে টাপ করতে হবে।

আশা করি সবাই বুঝতে পারছেন কিভাবে মোবাইল ফোন কে সেকেন্ডারি বা ডুয়াল মনিটর হিসাবে ব্যবহার করবেন। যদি আপনার এই পোস্ট টি ভালো লাগে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন।

ধন্যবাদ

আরো পড়ুনঃ

কম্পিউটারের জন্য বেস্ট ফ্রি ডাউনলোড ম্যানেজার সফটওয়্যার।

কম্পিউটার ভাইরাস প্রতিরোধের উপায়।

কম্পিউটার রিপেয়ারিং করতে দেওয়ার আগে করণীয়।

বিভিন্ন ধরনে টিপস এন্ড ট্রিক সহ প্রযুক্তি সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্য তৈরী প্রযুক্তি বিদ্যা। টেকনোলজি সম্পর্কিত আর্টিকেল পেতে প্রতিদিন ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট।

2 thoughts on “আপনার মোবাইলকে সেকেন্ডারি মনিটর হিসাবে ব্যবহার করুন।”

Leave a Comment